shasthokothaxyz@gmail.com

+8801953906973

কাঁচা কলার উপকারিতা

কলা আমরা সকলেই চিনি।কলা কাঁচা হোক কিংবা পাকা হোক দুইটাই অনেক গুণ। পাঁকা কলা খাওয়া হয় ফল হিসেবে কাঁচা কলা খাওয়া হয় সবজি হিসেবে।

fgggg Md Ashiqur Rahman ভিউ: 336

Logo

পোস্ট আপডেট 2020-12-26 17:41:07   11 months ago

কাঁচা কলা  সাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। আমরা হয়তো পাকা কলা সম্পর্কে জানি কিন্তু কাঁচা কলার গুণ সম্পর্কে অনেকের ধারণা নাই। কাঁচা কলাতে প্রচুর আয়রন আছে। এটা সবজি হিসেবে আমরা রান্না করে খাই।এতে আছে ভিটামিন-এ, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন সি। যা আমাদের রোগ প্রতিরোধে সয়াহক।তাই কাঁচা কলা খাওয়া  খুবই উপকারী।


নিচে কাঁচা কলা ৮টি উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হল



১) হজমে সাহায্য করে

কাঁচা কলা পেটের ভিতরে খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে দেয়। আঁশযুক্ত সবজি হওয়ায় এটি খুব সহজে হজমযোগ্য। তাছাড়া কাঁচা কলায় থাকা এনজাইম ডায়রিয়া এবং পেটের নানা ইনফেকশন দূর করে।



২) হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়

কাঁচা কলায় প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম থাকে। এই পটাশিয়াম হৃদরোগে উপকারী। তাই নিয়মিত কাঁচা কলা খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়।


৩) কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

কাঁচা কলা কোলন থেকে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া, জীবাণু এবং ইনফেকশন দূর করে কোলনকে সুস্থ রাখে। দীর্ঘমেয়াদী কোলন সংক্রান্ত রোগ দূর করতে কাঁচা কলা বেশ কার্যকরী।


৪) ওজন কমায়

ওজন কমাতে চাইলে, খাদ্য তালিকায় রাখুন কাঁচ কলা। কাঁচ কলার ফাইবার অনেকটা সময় পেট ভরিয়ে রাখে। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় তা মেদ কমাতেও সাহায্য করে।


৫) রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে
রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণের জন্যেও কাঁচ কলা উপকারী। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। ভিটামিন বি৬ গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করে টাইপ-টু ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।



৬) হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে

পাকা কলার মত কাঁচ কলাতেও প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে। বিভিন্ন গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, প্রতিদিন ৪,৭০০ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম গ্রহণে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস হয়। তবে পটাসিয়াম সবার জন্য নিরাপদ নয়। উচ্চ রক্তচাপ অথবা কিডনির রোগে আক্রান্ত রোগীদের পক্ষে তাই কাঁচ কলা খাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ থাকা উচিত।


৭) পেটের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে

কাঁচ কলা আঁশযুক্ত সবজি হওয়ায় এটি খুব সহজে হজম হয়। কাঁচ কলা পেটের ভিতরের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে দেয়। তবে অতিরিক্ত পেট ফোলার সমস্যা থাকলে কাঁচ কলা না খাওয়াই ভালো। কোষ্ঠ্যকাঠিন্যের সমস্যাও অনেক সময়ে বাড়িয়ে দেয়।


৮) ডায়রিয়ায় কাঁচা কলা

কাঁচ কলায় থাকে এনজাইম, যা ডায়রিয়া এবং পেটের নানা ইনফেকশন দূর করে। তাই ডায়রিয়া হলে চিকিৎসকেরা কাঁচ কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন।



কমেন্ট


সাম্প্রতিক মন্তব্য


Logo

Sony Akter 11 months ago

Nice

Logo

Upma tewari 11 months ago

Wow