shasthokothaxyz@gmail.com

+8801953906973

কিটো ডায়েট সম্পর্ককে বিস্তারিত

পলি বিনতে মালেক

fgggg স্বাস্থ্য কথা ভিউ: 292

Logo

পোস্ট আপডেট 2021-03-10 12:15:25   8 months ago


প্রথমেই আমাদের জানতে হবে কিটো ডায়েট কি?


কিটো ডায়েট হচ্ছে একটি হাইফা-ডায়েট। এই ডায়েটে প্রচুর পরিমানে ফ্যাট, একটু কম পরিমানে প্রোটিন এবং খুব কম পরিমানে শর্করা খেতে হয়।
এই ডায়েটে প্রচুর পরিমানে চর্বি জাতীয় খাবার এবং প্রোটিন যুক্ত খাবার খাওয়া যাবে। কিন্তু কার্বোহাইড্রেট খাবার যেমন- ভাত,রুটি,পাস্তা,নুডলস বা চিনি জাতীয় খাবার খাওয়া যাবেনা।
বর্তমানে ডা: জাহাঙ্গীর কবির  স্যার কিটো ডায়েট এর চার্ট মিডিয়া গুলোতে এত প্রচার করেছেন যার দরুণ অনেকেই এই চার্ট মেনে ১ মাসে ৫-১০ কেজি পর্যন্ত কমিয়েছে।

কিটো ডায়েট এর চার্ট


 সকালে যা খেতে হবে
সকালে ঘুম থেকে উঠে ১/২ গ্লাস পরিমান হালকা গরম পানিতে ২ টেবিল চামচ পরিমান অর্গানিক এ্যপেল সিডার ভিনেগার এবং ১-২ টেবিল চামচ পরিমান লেবুর রস মিশিয়ে খেতে হবে। এটা খাওয়া ১/২ ঘন্টা পর সকালের নাস্তা করতে হবে।


নাস্তার রেসিপি -

নাস্তা হিসেবে ডিমের ওমলেট খাওয়া যেতে পারে। ২টি ডিমের সাথে সামান্য একটু লবন দিয়ে তাতে ১টি কাঁচা 
মরিচ, ১ টেবিল চামচ পিয়াজ কুচি, অল্প ধনিয়া পাতা দিয়ে সব একসাথে ফেটে নিতে হবে। 
একটি ননস্টিক প্যন-এ সামান্য তেল ব্রাশ করে মাখিয়ে নিতে হবে। তেল ভাল ভাবে গরম হলে ডিমের ফেটান মিশ্রণ প্যন-এ দিয়ে দিতে হবে। উপরে কিছু পনির ছিটিয়ে দিয়ে ২মিনিট পর উল্টে নিলেই হয়ে যাবে ডিমের ওমলেট।
সাথে ১ কাপ গ্রীনটি ও ৮-১০ আমন্ড।


দুপুরে যা খেতে হবে-



দুপুরের খাবারের ১/২ ঘন্টা আগে ১ গ্লাস পরিমান পানিতে  ইশুপগুলের ভুশি মিশিয়ে সাথে সাথে খেতে হবে। যাতে ইশুপগুল ফুলে না যায়। 


দুপুরের খাবার রেসিপি-

মাছ, মাংশ, সবজি গ্রিল করে খাওয়া যায়। সবজি সেদ্ধ বা সামান্য অলিভ ওয়েল দিয়ে টস করে খাওয়া যায়। মাছ, মাংশ বা সবজি দিয়ে স্যুপ বা সট্রু করে খাওয়া যেতে পারে।
চিকেন স্টু তৈরীকরার রেসিপি -
১ টেবিল চামচ নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল এ ১/২ কাপ পিয়াজ হালকা করে ভেজে তাতে ৩ টুকরা কচি মুরগীর মাংশ ও সবজি যেমন- ফুলকপি, ব্রকলি,পালংশাক, লেমন গ্রাস দিতে হবে। একটু গোল মরিচ, কাঁচা মরিচ, তেজপাতা, সামান্য গরম মশলা গুড়ো, ১ টেবিল চামচ আদা রসুন বাটা ও একটু লবন দিয়ে নেড়ে দিয়ে একটি টমেটো, জিরা গুড়ো দিয়ে ৫-৬ মিনিট ভেজে এতে পানি দিয়ে মাঝারি ও কম আঁচে সেদ্ধ হওয়া পর্যন্ত হতে দিতে হবে। হয়েগেলে নামানোর আগে লেবুর রস,ধনিয়া পাতা দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিতে হবে। হয়ে যাবে মাঝারি সাইজের একবাটি দুপুরের খাবার।


বিকেলের দিকে ড্রাইফুড যেমন- কাজু, পেস্তা,কাঠ, চিনা বাদাম খালি বা রোস্ট করে খাওয়া যায়। সাথে এককাপ গ্রীনটি। টমেটো, শসা ও খাওয়া যেতে পারে।


রাতে যা খেতে হবে-